Breaking News
Home / Lifestyle / সম্পূর্ণ প্রাকৃতিক উপায়ে খুব দ্রুত ও সহজেই ত্বক ফর্সা করার টিপস

সম্পূর্ণ প্রাকৃতিক উপায়ে খুব দ্রুত ও সহজেই ত্বক ফর্সা করার টিপস

সুন্দর ফর্সা ও গ্লোয়িং ত্বক প্রতিটি নারী ও পুরুষের আকাঙ্খা। নিজেকে আকর্ষণীয় ভাবে উপস্থাপন করতে কে না চায়। প্রতিটি মানুষ চায় ত্বকে ঔজ্জ্বল্য রঙ। ব্যস্তময় জীবনে সময়ের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে চলতে গিয়ে ত্বকের পরিচর্যা করতে ভুলেই যাই। সূর্যরশ্মি, ধুলোবালি ও পরিচর্যা অভাবে আমদের ত্বকের ফর্সা রঙ বিলীন হয়ে যায়। ত্বকের ঔজ্জ্বল্য রঙ ফেরাতে কেমিক্যাল যুক্ত ফেয়ারনেস ক্রিমের আশ্রয় নেয় সবাই। যেগুলো ত্বকের পক্ষে খুবই ক্ষতিকর। কেমিক্যাল যুক্ত ক্রিমের পরিবর্তে ঘরোয়া পদ্ধতিতে ত্বকের ঔজ্জ্বল্য ফিরিয়ে আনতে পারেন। জেনে নিন, ঘরোয়া পদ্ধতিতে কীভাবে ত্বক ফর্সা করবেন-

ঘরোয়া পদ্ধতিতে ত্বক ফর্সা করার টিপস 1.1 ডিমের কুসুমঃ 1.2 কাঁচা হলুদ বাটাঃ 1.3 টক দইয়ের ব্যবহারঃ 1.4 লেবুর রসঃ 1.5 মুসুরের ডালঃ 1.6 চন্দনের গুড়োঃ 1.7 শসার রসঃ 1.8 বেসনের উপকারিতাঃ 1.8.1 রইল কিছু অতিরিক্ত টিপসঃবাজারে দামি ফেয়ারনেস ক্রিমে কেমিক্যাল থাকে যা আপনার ত্বককে ক্ষতিগ্রস্ত করে তুলতে পারে। ত্বকের অবহেলা না করে প্রাকৃতিক পর্যায়ে,কম খরচে ত্বককে ফর্সা করতে পারেন। ডিমের কুসুমঃ ডিমের কুসুমঃ ত্বক ফর্সা করার একটি কার্যকরী উপাদান হল ডিমের কুসুম। কুসুম ত্বকের হারিয়ে যাওয়া ঔজ্জ্বল্যতা ফিরিয়ে আনতে সহায়তা করে।

মসুরের ডাল বেটে, ডিমের হলুদ অংশ ও কয়েক ফোঁটা লেবুর রস নিয়ে মিশিয়ে নিন। ৩০ মিনিট রেখে ঠাণ্ডা জলে ধুয়ে ফেলুন। কাঁচা হলুদ বাটাঃ রূপচর্চায় কাঁচা হলুদের ব্যবহার যুগ যুগ ধরে চলে আসছে। ত্বক ফর্সা করার টিপস এ কাঁচা হলুদ একটি উপকারি উপাদান। কাঁচা হলুদ ত্বকের ঔজ্জ্বল্যতা বাড়ায়। কাঁচা হলুদ বেটে সরিষার তেলের সাথে মিশিয়ে প্রতিদিন স্নানের আগে হাত ও পায়ে লাগালে ত্বক ফর্সা হয়। এছাড়াও নিয়মিত এক গ্লাস দুধের সঙ্গে কাঁচা হলুদ বাটা মিশিয়ে পান করলে ১ সপ্তাহের মধ্যে ত্বকের ঔজ্জ্বল্যতা ফিরে আসে। টক দইয়ের ব্যবহারঃ ফর্সা হতে চান ত্বকে টক দই লাগান। চুলের পক্ষে তো অব্যশই ত্বকের ক্ষেত্রেও এর গুনের শেষ নেই।

টক দইয়ে রয়েছে ল্যাকটিক অ্যাসিড যা ফর্সা হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে ত্বককে করে তুলবে গ্লোয়িং। টক দই মুখে লাগিয়ে ৫-১০ মিনিট পর ঠাণ্ডা জলে ধুয়ে ফেলবেন। আর যাদের ত্বক খুব শুষ্ক ও রুক্ষ তারা টক দই এর সঙ্গে মধু মিশিয়ে মাখতে পারেন। ভালো ফল পেতে সপ্তাহে ২ দিন ব্যবহার করবেন। লেবুর রসঃলেবুর রসঃ লেবু ব্লিচিং এর কাজ করে। মুখে লেবুর রস সরাসরি না মেখে তার সঙ্গে টমেটোর রস মিশিয়ে স্ক্রাবিং করলে ত্বকের ঔজ্জ্বল্য রঙ ফেরাতে সাহায্য করে। এটি খুব সহজতম ঘরোয়া পদ্ধতিতে ত্বক ফর্সা করার টিপস।

মুসুরের ডালঃ মুসুরের ডালঃ কমবেশি আমরা সবাই জেনে থাকি, মুসুরের ডালের বাটা ত্বকে পক্ষে খুব কার্যকারী। মুসুরের ডাল রোদে পোড়া কালো দাগ দূর করে ত্বককে ফর্সা করে তোলে। মুসুরের ডাল বেটে নিন। সেই পেস্টটি পুরো মুখে লাগিয়ে রাখুন.১৫-২০ মিনিট বাদে শুকিয়ে এলে ঠাণ্ডা জলে ধুয়ে নেবেন। চন্দনের গুড়োঃ ত্বক ফর্সা করার দুর্দান্ত প্রাকৃতিক উপায় হল চন্দনের গুড়ো। এই গুড়ো শুধুমাত্র পুজর কাজেই ব্যবহার হয় না এটি রূপচর্চার কাজেও উপকারি। ফর্সা ত্বক পেতে চন্দের গুড়ো,দুধের সঙ্গে মিশিয়ে লাগান।

শসার রসঃত্বক যদি খুব শুষ্ক হয় তাহলে ত্বকের ঔজ্জ্বল্যতা ফেরাতে ২ চামচ শসার রসের সঙ্গে ১ চামচ মধু মিশিয়ে মুখে ও ঘাড়ে লাগিয়ে রাখুন। ১০ মিনিট পর ঠাণ্ডা জলে ধুয়ে ফেলুন। সপ্তাহে ৩-৪ বার ব্যবহার করলেই ম্যজিকের মতো কাজ করবে। বেসনের উপকারিতাঃ ত্বক ফর্সা করার টিপস নিয়ে যখন আমরা অলোচনা করি, তখন বেসনের কথা এড়িয়ে চলতে পারি না। ত্বকের ঔজ্জ্বল্যতা ফেরাতে বেসন জাদুর মতো কাজ করে।

৩ চা চামচ বেসন,কাঁচা হলুদ বাটা,আর দুধ মিশিয়ে প্যাক তৈরি করে নিন। এবার প্যাকটি মুখে ও গলায় লাগিয়ে রাখবেন। প্যাকটি শুকিয়ে এলে ঠাণ্ডা জলে ধুয়ে নেবেন। সপ্তাহে অন্তত ২ বার ব্যবহার করলে ভালো কাজ দেবে। আশা করব, ঘরোয়া পদ্ধতিতে ত্বক ফর্সা করার টিপস গুলি আপনাদের দ্রুত কাজ দেবে। রইল কিছু অতিরিক্ত টিপসঃ ত্বক পরিষ্কার রাখার চেষ্টা করুন। রোদে বেড়ানোর আগে সান্সক্রিম ব্যবহার করবেন। প্রতিদিন ঠাণ্ডা জলে স্নান করবেন। ফেয়ারনেস ক্রিম এড়িয়ে চলুন। বেশি করে জল খান। পুষ্টিকর খাবার খাবেন। বেশি করে ফল খাবেন।

About admin

Check Also

খুব দ্রুত যে ভয়ংকর ৭টি রোগ থেকে মুক্তি মিলবে নিয়মিত খেজুর খেলে

আমাদের দেশে সৌদি আরবের খেজুর সারা বছর পাওয়া গেলেও মূলত রমজান মাস ছাড়া ফলটি খুব ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *